Logo
শিরেোনাম ::
সিলেট মহানগর ছাত্রলীগের উদ্যোগে শেখ হাসিনার জন্মদিন পালিত হাটহাজারী উপজেলা ছাত্রলীগের উদ্যোগে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা’র ৭৫ তম জন্মদিন পালিত সংগঠক সোহেল আহমেদ একাত্তর ক্রীড়া ও সমাজকল্যাণ সংস্থা’র সহ-সভাপতি নির্বাচিত বোয়ালখালীতে ব্যবসায়ী শিবু সেন পরলোকে মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর জন্মদিন পালন উপলক্ষে দক্ষিণ ভূর্ষি ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের প্রস্তুতি সভা মাসিক স্বাস্থ্য সচেতনতায় বটবৃক্ষের প্রথম ইভেন্ট সিলেট জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান জয়নাল আবদিনকে ইউপি সদস্য সুহেল আহমেদের শুভেচ্ছা শ্রীমঙ্গল উপজেলায় মানবতার সেবায় উজ্জ্বল দৃষ্টান্ত স্হাপন করেছে সাতগাঁও প্রবাসী ফোরাম জাতিসংঘের ‘এসডিজি অগ্রগতি পুরষ্কার’ অর্জন করায় প্রধানমন্ত্রীকে ডুয়েট উপাচার্যের অভিনন্দন ভোলাগঞ্জ- দয়ার বাজার রাস্তা সংস্কারে বরাদ্দ মন্ত্রী ইমরান আহমদ কে এড. মাহফুজুর রহমানের অভিনন্দন

ঘটনাস্থলে এসে সরেজমিনে তদন্ত করা যুক্তিসঙ্গত: ইউজিসি কর্তৃক রাবি উপাচার্য কে উন্মুক্ত শুনানি প্রসঙ্গে

মো: আলিম- আল- রাজি, রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিনিধি / ৫২৭ বার
আপডেট সময় : বৃহস্পতিবার, ১০ সেপ্টেম্বর, ২০২০

রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিনিধি: জ্ঞান চর্চার জন্য স্বাধীনতা অপরিহার্য কেননা সত্য কোন রাষ্ট্রীয় বিধি, কোন সামাজিক নিষেধ, ধর্মীয় অনুশাসন মেনে চলে না। জ্ঞান ও সত্যের সঙ্গে মিল নাও হতে পারে প্রথাগত ,সামাজিক, রাষ্ট্রীয় ,ধর্মীয় বিশ্বাসের এবং না হওয়াই স্বাভাবিক কেননা প্রথা না এড়াতে পারলে জ্ঞানের অগ্রগতি অসম্ভব । যে জ্ঞান প্রথা পরিক্রমায় ব্যস্ত তা কোন জ্ঞান নয় ।সভ্যতার ইতিহাস প্রথা ও মুক্ত জ্ঞানের সংঘর্ষে পরিপূর্ণ।

স্বাধীন জ্ঞানচর্চার অপরিসীম সুযোগ সৃষ্টি এবং রাষ্ট্রীয় হস্তক্ষেপ থেকে স্বাধীন শিক্ষা কার্যক্রম পরিচালনার কথা মাথায় রেখে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ১৯৭৩ সালে বিশ্ববিদ্যালয় পরিচালনায় একটি অ্যাক্ট পাশ করেন, চারটি পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ের জন্য রয়েছে সর্বোচ্চ স্বায়ত্তশাসনের বিধান । আইনগত তাঁদের স্বায়ত্তশাসন প্রাপ্য এবং তারা তা ভোগ করে।

তিয়াত্তরের অ্যাক্ট অনুযায়ী বিশ্ববিদ্যালয়ের মাননীয় আচার্য কর্তৃক নিয়োগপ্রাপ্ত উপাচার্য বিশ্ববিদ্যালয়ের সার্বিক কর্মকান্ড পরিচালনার নিরঙ্কুশ ক্ষমতার অধিকারী। ৭৩ অ্যাক্ট এর ধারা ১২ এর ৫ এবং ৭ এ বলা হয়েছে…

১২(৫) The Vice-Chancellor shall have the power to appoint, on a purely temporary basis, ordinarily for a period of not more than six months, officers (excepting the Pro-Vice-Chancellor and the Treasurer), teachers and administrative and subordinate staff and report such action to the Syndicate.

এই অনুচ্ছেদটিতে বলা হয়েছে উপাচার্য অনধিক ছয় মাসের সাধারণ মেয়াদে সম্পূর্ণ সাময়িক ভিত্তিতে উপ-উপাচার্য ও কোষাধ্যক্ষ ব্যতীত কর্মকর্তা, শিক্ষক এবং প্রশাসনিক ও অধস্ত কর্মচারী নিয়োগদান এবং নিষদের নিকট এরূপ কার্যের প্রতিবেদন প্রদানের ক্ষমতা রাখবেন।

১২ (৭) In any emergency arising out of the business of the University and requiring, in the opinion of the Vice-Chancellor immediate action, the Vice-Chancellor may take such action as he may deem necessary and shall, within seven days thereafter, report his action to the officer. Authority or other body who or which, in the ordinary course, would have dealt with the matter.

এ অনুচ্ছেদটি বিশ্লেষণ করলে দেখা যায় যে বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের সর্বোচ্চ শাসন ক্ষমতার অধিকারী হয়ে থাকেন। উপাচার্য ১২(৭) মোতাবেক আপাতত কার্যকর থাকাকালীন যে কোনও আইনের বিধান থাকা সত্ত্বেও, উপাচার্য, যে কোনও জরুরি পরিস্থিতিতে, তাঁর মতে, তাত্ক্ষণিক পদক্ষেপ গ্রহণের প্রয়োজন হইলে, তিনি প্রয়োজনীয় বিবেচিত হিসাবে এই পদক্ষেপ নিতে পারেন।বলার অপেক্ষা রাখেনা বিশ্ববিদ্যালয়ের যেকোনো প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করতে উপাচার্য মহোদয়ের ক্ষমতা সর্বোচ্চটুকু দেয়া হয়েছে ৭৩ অ্যাক্ট এর মাধ্যমে।

বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশন হল সরকার এবং বিশ্ববিদ্যালয়গুলোর মধ্যে সমন্বয় সাধনকারী একটি প্রতিষ্ঠান।

The university grants commission of Bangladesh order, 1973 (The University Grants commission of Bangladesh [Amendment] Act, 1998) । এ প্রতিষ্ঠানটি বিশ্ববিদ্যালয়ের অর্থায়নের প্রতিষ্ঠান । অর্থায়ন ছাড়াও কমিশন মাঝেমধ্যে বিশ্ববিদ্যালয়ের মান উন্নয়নের জন্য উপাচার্য ,শিক্ষক সহ ঊর্ধ্বতন যারা আছেন তাদের সঙ্গে আলাপ-আলোচনা ও পরামর্শ দিতে পারে ।
সেই দিক থেকে মূল্যায়ন করলে রাবি উপাচার্য মহোদয় কে উন্মুক্ত শুনানির জন্য নোটিশ প্রেরণের কোনো এখতিয়ার বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশন রাখেনা যা তিয়াত্তরের অ্যাক্ট পরিপন্থী, অ্যাক্ট অনুযায়ী ধারা ১২(উপাচার্যের ক্ষমতা) বিরোধী এবং স্বাধীন স্বায়ত্তশাসন এর উপর আঘাত বললেও ভুল হবে না।
গত ২সেপ্টেম্বর ২০২০ বিশ্ববিদ্যালয়ের মুক্তিযুদ্ধের চেতনা ও মূল্যবোধের বিশ্বাসী প্রগতিশীল শিক্ষক সমাজের ব্যানারে ড. মুজিবুর রহমানের স্বাক্ষরিত এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তির মাধ্যমে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের বিরুদ্ধে আনীত অভিযোগের তদন্ত কার্যক্রম বিশ্ববিদ্যালয়ে এসে পরিচালনার জন্য দাবি জানানো হয়েছে যা অত্যন্ত ইতিবাচক এবং উত্তম মধ্যস্থতা বলে আমার বিশ্বাস।বিশ্ববিদ্যালয়ের অনিয়মের বিরুদ্ধে যদি কোনো তদন্ত কার্যক্রম পরিচালনার প্রয়োজন হয় তাহলে অবশ্যই তা যথাস্থানে এসে পরিচালনা করা বাঞ্ছনীয় । ইতিপূর্বে দেশের বিভিন্ন সরকারী এবং বেসরকারী বিশ্ববিদ্যালয়ে দুর্নীতি এবং অনিয়মের অভিযোগ উঠলেও উন্মুক্ত শুনানির কোনো কথা শোনা যায়নি অথচ রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের মতো একটি স্বনামধন্য ,পূর্ণাঙ্গ স্বায়ত্তশাসন দ্বারা পরিচালিত বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্যকে উন্মুক্ত শুনানির জন্য নোটিশ প্রেরণ করা অত্যন্ত সম্মানহানিকর যা ঐতিহ্যবাহী এই বিশ্ববিদ্যালয়ের ভাবমূর্তি নষ্ট করছে। প্রকৃত সত্যটা উদ্ভাসিত হোক এটা আমাদের সকলের আকাঙ্ক্ষা কিন্তু অবশ্যই সেটা যেন হয় বিধিসম্মত উপায়ে ।

একটি স্বার্থন্বেষী মহলের স্বার্থ চরিতার্থ করার উদ্দেশ্যে কিছু মনগড়া, ভিত্তিহীন অভিযোগ আনা হয়েছে সম্পূর্ণভাবে ,স্বাধীনতা এবং বঙ্গবন্ধুর আদর্শে বিশ্বাসী উপাচার্য মহোদয় কে কিছুটা বিব্রত এবং সম্মানহানি করার উদ্দেশ্যে। প্রকৃত সত্যটা সামনে আসবে ,কালের গহব্বরে হারিয়ে যাবে সকল অশুভ শক্তি এটা আমাদের সকলের প্রত্যাশা এবং বিশ্বাস। কিছু, কিছু বিষয় যুক্তি বা প্রাসঙ্গিকতা দিয়ে বিচার করা যায় না, বিচার করতে হয় আদর্শের মাপকাঠি তে, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের আদর্শকে যারা হৃদয়ে লালন করে তারা কখনো দুর্নীতির এবং অনিয়মের কাছে আত্মসমর্পণ করে না।

মাহাফুজ আল আমিন
সহ-সভাপতি
রাবি ছাত্রলীগ।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
Theme Created By ThemesDealer.Com