Logo
ব্রেকিং নিউজ ::
জাপানের নতুন প্রধানমন্ত্রী হলেন সুগা কক্সবাজারে বিশ্বের বৃহত্তম আশ্রয়কেন্দ্রের উদ্ভোধন সাবেক স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অ্যাডভোকেট সাহারা খাতুন আর নেই করোনায় মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রী আ.ক.ম মোজাম্মেল হকের স্ত্রীর মৃত্যু কামাল লোহানী আর নেই লালমাই উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি ও অর্থমন্ত্রী এর বড়ভাই আব্দুল হামিদ এর করোনা পজিটিভ করোনাতে নতুন আক্রান্ত ৩৮৬২ জন করোনা কেড়ে নিল সাবেক মেয়র বদর উদ্দিন আহমদ কামরানের প্রান না ফেরার দেশে চলে গেলেন ধর্ম বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের মাননীয় প্রতিমন্ত্রী অ্যাডভোকেট শেখ মো. আব্দুল্লা: ‘চট্টগ্রাম প্রতিদিন’ এ প্রকাশিত মিথ্যা ও উদ্দেশ্য মূলক নিউজের প্রতিবাদ জানালেন আমিনুল ইসলাম
শিরেোনাম ::
লক্ষ্মীপুর সদর হাসপাতালে হাইফ্লো অক্সিজেন স্থাপন সিলেটের কোম্পানীগঞ্জ প্রেস ক্লাবের সভাপতি শাব্বির ও সাধারন সম্পাদক আবিদ ডুয়েট এর ভারপ্রাপ্ত ভিসি অধ্যাপক ড. মোহাম্মদ আসাদুজ্জামান চৌধুরী ইডেন কলেজের ছাত্রীকে ঢাবির ধর্ষণ মামলাকারী বলে প্রচার চকরিয়ায় দুই মারমা তরুণীর ইসলাম গ্রহণ সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান ও উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতির উপর হামলার প্রতিবাদে মানববন্ধন কর্মসূচি রাবিতে ইউজিসির উন্মুক্ত শুনানি বন্ধ এবং পক্ষপাতহীন তদন্ত কমিটির দাবিতে গণস্বাক্ষর কর্মসূচি চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের চারুকলা ইনস্টিটিউটের ৫০ বছর পূর্তি উদযাপন “দৈনিক জনকন্ঠ” পত্রিকায় নেতিবাচক সংবাদ : ডুয়েট শিক্ষক সমিতির তীব্র নিন্দা প্রকাশ সাধারণ শিক্ষার্থীদের পক্ষ থেকে ডুয়েট ছাত্রলীগের প্রতিবাদ লিপি

এসি ব্যবহারে সতর্ক হওয়া জরুরী

প্রকৌ. বেনজীর আহমেদ সহকারী প্রকৌশলী (বিদ্যুৎ), প্রকৌশল অফিস ঢাকা প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় (ডুয়েট), গাজীপুর। / ৪৭৩ বার
আপডেট সময় : সোমবার, ৭ সেপ্টেম্বর, ২০২০

এসি ব্যবহারে সতর্ক হওয়া জরুরী, প্রকৌশলী বেনজীর আহমেদ।

বর্তমানে গরমকালে তাপমাত্রা বেড়ে যাওয়ায় এবং এসির দাম তুলনামূলক কম থাকার কারনে অফিস-আদালত সহ বাসা-বাড়ীতে অনেকেই এসি ব্যবহার করছে। এসির ব্যবহার বাড়ার সাথে সাথে বাড়ছে দূর্ঘটনাও। গত ২০১৯ সালে ঢাকা ও গাজীপুরে কয়েকটি এসি বিস্ফোরনের ঘটনা ঘটেছে এবং অনেক মানুষ হতাহত হয়েছে। এসি ব্যবহারে সতর্কতা অবলম্বন ছাড়া এসব দূর্ঘটনা রোধ করা সম্ভব নয়।

এসি কর্তৃক দূর্ঘটনা সংগঠিত হওয়ার কয়েকটি কারন ও প্রতিকার উল্লেখ করা হলঃ

১। নিম্নমানের এসির ব্যবহারঃ
নিম্নমানের এসির ভেতরের বিভিন্ন যন্ত্রাংশ এবং ফ্যান, তার তথা বিদ্যুতের ব্যবস্থাগুলো সঠিক থাকে না। ফলে সেখানে কারিগরি ত্রুটি দেখা যায়, যা অনেক সময় আগুনের সূত্রপাত করতে পারে। বিশেষ করে বাজারে বিদেশী নামী-দামী ব্র্যান্ডের এসির স্টিকার ব্যবহার করে কিছু অসাধু ব্যবসায়ী গ্রাহকদের কাছ থেকে চড়া মূল্য নিয়ে নকল পণ্য বুঝিয়ে দেন। ঐসব পণ্যের সঠিক গুনগত মান ঠিক থাকে না ফলে দূর্ঘটনা ঘটার সম্ভাবনা বেশি থাকে। তাই এসি কেনার সময় বিভিন্ন অফারের লোভে না পড়ে ভালভাবে যাচাই করে আসল পণ্য কেনা উচিত।

২। নিয়মিত রক্ষণাবেক্ষনের অভাবঃ
অনেক সময় কম্প্রেসারের ভেতরে ময়লা আটকে জ্যাম তৈরি হয় অথবা গ্যাস লিক হয়ে এসির ভেতর বা রুমের ভেতর জমে; এই জ্যাম আর লিক সময়মতো সার্ভিসিং না করালে বিস্ফোরণ ঘটতে পারে। এছাড়া এসির ফিল্টার নিয়মিত পরিষ্কার না করার কারনেও বিস্ফোরণ ঘটতে পারে। বছরে কমপক্ষে একবার এসি সার্ভিসিং করানো প্রয়োজন। প্রতি বছর শীতের সময় অনেকদিন এসি বন্ধ থাকার পর চালু করার আগে ভেতরে জমে থাকা ময়লা পরিষ্কার করে এসি চালু করা প্রয়োজন।

৩। সঠিক ক্ষমতার এসি ব্যবহার না করাঃ
অনেকে রুমের লোড অনুপাতে এসি ব্যবহার করেন না। ফলে এসিটিকে অনেকক্ষণ ধরে চলতে হয়, ফলে অতিরিক্ত গরম হয়ে যায়, যা ঝুকিপূর্ণ। কত টনের এসি কিনবেন, তা নির্ণয়ের সময় রুমের আকার জানার পাশাপাশি রুমটি কততম ফ্লোরে অবস্থিত, সূর্যের তাপ দেয়ালের কোন পাশে লাগে, রুমে কতজন মানুষ থাকবে, রুমে কোন হিটিং জিনিসপত্র যেমন- ওভেন বা আয়রন ব্যবহার করবেন কিনা, জানালা, দরজা, পর্দা, সিলিং, ফ্লোর- এসবের হিট কন্ডাকটিভিটি কেমন এসব বিষয় বিবেচনা করতে হবে। তবে সাধারণত আপনার রুম যদি ১০০-১২০ স্কয়ার ফুট হয়, সেক্ষেত্রে ১ টন এসি যথেষ্ট। ১২০-১৫০ স্কয়ার ফুট ঘরের জন্য প্রয়োজন ১.৫ টন এসি, ১৫০-২০০ স্কয়ার ফুট বা তার বেশি আয়তনের ঘরের জন্য প্রয়োজন ২ টন ক্ষমতার এসি।

৪। বৈদ্যুতিক ব্যবস্থা সঠিক না থাকাঃ
সঠিক মানের ক্যাবল দিয়ে এসির লাইন নির্মাণ না করলে এসি চলমান অবস্থায় অতিরিক্ত কারেন্টের জন্য ক্যাবল পুড়ে গিয়ে বড় ধরনের দূর্ঘটনা এমনকি এসি বিস্ফোরণের মত ঘটনা ঘটতে পারে। অনেক সময় বৈদ্যুতিক হাই ভোল্টেজের কারণেও এসব ঘটনা ঘটে। হাইভোল্টেজের কারণে যেকোনো ইলেক্ট্রিক মেশিনের ওপর চাপ সৃষ্টি হলেই সেখানে সমস্যা হয় এবং একসময় বিস্ফোরণের মতো পরিস্থিতি তৈরি হয়। উক্ত পরিস্থিতি মোকাবেলায় সঠিক মানের ক্যাবল এবং সার্কিট ব্রেকার ব্যবহার করে লাইন নির্মাণ করতে হবে এবং গরমের শুরুতেই এসির বৈদ্যুতিক সংযোগ, সকেট, ফিল্টার—এসবের অবস্থাটা ঠিকমতো পরীক্ষা করতে হবে। হাইভোল্টেজ এড়ানোর জন্য বজ্রপাতের সময় এসি বন্ধ রাখা এবং প্রতিটি ভবনের ছাদে লাইটনিং এ্যারেস্টর ব্যবহার করা উচিত।

৫। একটানা অনেকক্ষণ এসি চালু রাখাঃ
আমাদের কখনোই ২৪ ঘণ্টা এসি চালু রাখা ঠিক নয়। দীর্ঘক্ষণ চালু থাকলে এসির যন্ত্রপাতি অতিরিক্ত গরম হয়ে আগুন ধরে যেতে পারে। একটানা না চালিয়ে বেশ কিছুক্ষণ পর পর অন্তত এক-দুই ঘণ্টা এসিকে বিশ্রাম দিলে ঝুঁকিমুক্ত থাকা যায়। রাতের শেষভাগে এসি বন্ধ রাখাই উত্তম। কারণ রাতের শেষভাগে গরম কম থাকে এবং রাতে যতটুকু চলে তাতে দরজা-জানালা বন্ধ থাকলে ভোর পর্যন্ত কক্ষ এমনিতেই ঠান্ডা থাকে এবং বিদ্যুৎ বিলও সাশ্রয় হয়।
তাছাড়া অনেক সময় উইন্ডো টাইপ এসির সামনে জানালা বা দরজার পর্দা চলে আসলে বাতাস চলাচলে বাধাগ্রস্ত হয়। সেটিও এসিকে গরম করে তুলতে পারে।
এসি ব্যবহারের ক্ষেত্রে উপরোক্ত বিষয়গুলো মাথায় রাখলে অনাকাংখিত দূর্ঘটনা থেকে রেহাই পাওয়া সম্ভব।

লেখক
প্রকৌ. বেনজীর আহমেদ
সহকারী প্রকৌশলী (বিদ্যুৎ), প্রকৌশল অফিস
ঢাকা প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় (ডুয়েট), গাজীপুর।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর

পুরাতন খবর

সেহরির শেষ সময় - ভোর ৪:৩০
ইফতার শুরু - সন্ধ্যা ৬:০০
  • ফজর
  • যোহর
  • আছর
  • মাগরিব
  • এশা
  • সূর্যোদয়
  • ৪:৩৫
  • ১১:৫৫
  • ৪:১৫
  • ৬:০০
  • ৭:১৪
  • ৫:৪৬
Theme Created By ThemesDealer.Com