Logo
শিরেোনাম ::
গাউছিয়া অটো রাইচ মিল মালিকের পক্ষ থেকে পটিয়া মুন্সেফ বাজারে পণ্য বিক্রয় কেন্দ্রের শুভ উদ্বোধন গরীব,দুস্থ ও জেলেদের মাঝে খাদ্য সামগ্রী বিতরণ করলেন প্রকৌশলী মোহাম্মদ হোসাইন বিশ্বসেরা গবেষকদের তালিকায় ডুয়েটের ১৯ শিক্ষক বিশ্বসেরা গবেষকদের তালিকায় পবিপ্রবির ২৩ শিক্ষক তানোর উপজেলা বাসীকে শারদীয় দূর্গা পূজার আগাম শুভেচ্ছা জানিয়েছেন যুবলীগ নেতা মঈনুদ্দীন সোনার বাংলা সমাজকল্যাণ সংস্থার নতুন সভাপতি মোঃ আবুল হোসাইন, সাধারণ সম্পাদক মোঃ কামরুল হাসান শ্রীমঙ্গলে আওয়ামীলীগের মনোনীত প্রার্থী ভানুর জয় অর্থনৈতিক সমৃদ্ধির জন্য মা ইলিশ রক্ষার বিকল্প নেই: হোসাইন ডুয়েটে ২০২০-২১ সেশনের ভর্তি পরীক্ষার ফল প্রকাশ নৌকার মনোনয়ন প্রত্যাশী জামাত বিএনপি কর্মী ফয়জুর রহমান

প্রশাসনের অবহেলা,বশেমুরবিপ্রবির লাইব্রেরির কম্পিউটার চুরি

শেখ আব্দুর রহিম, বশেমুরবিপ্রবি প্রতিনিধি / ১০৬ বার
আপডেট সময় : সোমবার, ১০ আগস্ট, ২০২০

বশেমুরবিপ্রবি প্রতিনিধিঃ লকডাউনের মধ্যে গোপালগঞ্জের বিভিন্ন শিক্ষার্থীর মেসে চুরির ঘটনার পর এবার একই ঘটনা ঘটেছে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে। বশেমুরবিপ্রবির রেজিস্ট্রার কার্যালয় সূত্রে জানা গেছে, বিশ্ববিদ্যালয়টির একুশে ফেব্রুয়ারি লাইব্রেরিতে এই ঘটনা ঘটে। এসময়ে সেখান থেকে মোট ৯১ টি কম্পিউটার চুরি হয়।
রেজিস্ট্রার ড. মোঃ নূরউদ্দিন আহমেদ চুরির ঘটনা নিশ্চিত করে জানান, “ছুটি শেষে বিশ্ববিদ্যালয়ের কার্যক্রম শুরু হওয়ার পর বিষয়টি সম্পর্কে কর্তৃপক্ষ অবগত হয়। এসময় দেখা যায় লাইব্রেরীর পিছনের দিকের জানালা ভাঙা, ধারণা করা হচ্ছে কম্পিউটর গুলি ভাঙা জানালা দিয়ে চুরি হয়েছে। লাইব্রেরি কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে মোট ৯১ টি কম্পিউটার চুরি হয়েছে।”

চুরির ঘটনায় কোনো আইনি ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে কিনা এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি জানান, “চুরির ঘটনায় মামলা দায়ের করার প্রক্রিয়া চলছে।”

এ বিষয় বশেমুরবিপ্রবির সহকারী নিরাপত্তা কর্মকর্তা তরিকুল ইসলাম বলেন, “আমরা চুরির বিষয়ে জানার পর বিশ্ববিদ্যালয়ের সিসিটিভি ফুটেজ চেক করেছি। সিসিটিভিতে ২৭ জুলাই থেকে আজ পর্যন্ত ঘটা,ঘটনার ভিডিও ফুটেজ রয়েছে। এসময়ে কোনো চুরির ঘটনা ঘটেনি। আর এর আগে ২০ তারিখ উপাচার্য (রুটিন দায়িত্ব) মহোদয় লাইব্রেরি পরিদর্শন করেছিলেন। তখনও সকল কম্পিউটার যথাস্থানে ছিলো। তাই আমরা ধারণা করছি ২০ থেকে ২৭ তারিখের মধ্যবর্তী সময়ে এই চুরির ঘটনা ঘটেছে।”

এসময় তিনি আরো জানান, বিশ্ববিদ্যালয়ের ৩০ জন গার্ডের মধ্যে ২০ জন ২৩ তারিখ থেকে কোনো নির্দিষ্ট কারণ না জানিয়েই অনুপস্থিত ছিলেন তাই নিরাপত্তাজনিত কিছুটা সমস্যা ছিলো। তবে আমরা চেষ্টা করেছি অবশিষ্ট গার্ড ও আনসারদের সমন্বয়ে নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে।
এছাড়াও বিশ্ববিদ্যালয় খোলা কালীন সময়ে লাইব্রেরির কর্মরত কর্মকর্তা ও কর্মচারীদের কম্পিউটার ল্যাবে শিক্ষার্থীদের প্রতি দুর্ব্যবহার, ইন্টারনেট ব্যবহারে টালবাহানা, অফিস টাইমে ঘুমিয়ে থাকাসহ নানা অভিযোগ রয়েছে।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
Theme Created By ThemesDealer.Com