Logo
শিরেোনাম ::
প্লাস্টিক বর্জ্য সামুদ্রিক ও জলজ জীবনের সবচেয়ে বড় হুমকি কুমিল্লা চৌদ্দগ্রাম উপজেলার কাশিনগর বাজারে নিরাপত্তার স্বার্থে সিসি ক্যামেরা উদ্বোধন কবিতাঃ “একটি স্বচ্ছ হৃদয়” ডুয়েট উপাচার্যের সাথে ‘করিমগঞ্জ প্রতিবন্ধী স্কুল’ এর প্রতিনিধিবৃন্দের সৌজন্য সাক্ষাৎ ‘করিমগঞ্জ প্রতিবন্ধী স্কুল’ এর পক্ষ থেকে ডুয়েট উপাচার্যকে মাস্ক উপহার কুমিল্লা চৌদ্দগ্রামে আন্তঃজেলা গ্রিলকাটা চক্রের ৬ সদস্য গ্রেফতার । মুক্তিযোদ্ধাদের লাঞ্ছিতকারীরা আওয়ামী লীগে অনুপ্রবেশকারী-বীর মুক্তিযোদ্ধা সামশুদ্দীন আহমদ পরিবেশ দিবস উপলক্ষে বৃক্ষরোপণ কর্মসূচির আয়োজন করেছে ড্যাফোডিল বিশ্ববিদ্যালয় ভলেন্টিয়ার সার্ভিস ক্লাব ক্লাস-পরীক্ষার দাবিতে সিলেট টেকনিক্যাল স্কুল ও কলেজ শিক্ষার্থীদের মানববন্ধন। বর্ণাঢ্য আয়োজনের মধ্য দিয়ে ছাত্রলীগ নেতা রনি হকের জন্মদিন পালিত

অতি বৃষ্টিতে কক্সবাজারে পাহাড় কাঁটার ধুম-দেখার কেউ নাই

অনিন্দ্য বৈদ্য সানি, চীফ ব্যুরো চট্টগ্রাম / ১৭৯ বার
আপডেট সময় : সোমবার, ২২ জুন, ২০২০

অনিন্দ্য বৈদ্য সানি, চীফ ব্যুরো চট্টগ্রামঃ বিগত কয়েকদিন যাবৎ পর্যটকদের শহর ককসাজার বৃষ্টির দখলে । এখানে রাস্তায় চলাচলের সুবিধাও নেই । বিলাশবহুল গাড়ির পরিতর্তে কপ্টর ব্যাবহার হচ্ছে । শহরের নিচু এলাকা সহ শহরতলিতে জলঝট স্থান করে নিয়েছে । উপজেলার বেশিরভাগ গ্রাম প্লাবিত । তাছাড়া জেলার বিভিন্ন উপজেলায় ওবন্যা চলছে । পরিবেশে বিজ্ঞানীদের মতে এক সময় ককসবাজারে কোন বন্যা প্লাবন হত না । এই শহরের কোন মানুষ বন্যায় ক্ষতি গ্রস্ত হত না ।কখনো কখনো সাইক্লোন – ঘুর্নিঝড হলে ও তা ক্ষয় ক্ষতির করত উপকূলীয় অঞ্চলে তা এভাবে শহর কে কয়েকদিন ডুবিয়ে রাখত না । বর্তমান অবস্থার জন্য পাহাডি জমি এবং পাহড খেকুরা মূলত দায়ী । শহরের বিভিন্ন এলাকায় নির্বিচারে পাহড কেঁটে তা অতি মূল্য বিক্রি করা হয় । নির্বিচারে পাহাড় কেঁটে বসতবাটী তৈরী করার ফলে পাহাডি মঁটি পানি চলাচলের সব জায়গা দখলে নিচ্ছে । ফলে খাল – বিল এবং ছোট ছোট নদী সমুহ ভরাট হয়ে যাচ্ছে ।তাছাডা পাহাড় খেকুদের মত নদী দখল ও হচ্ছে । তাতে বৃষ্টির পানির প্রবাহে বাঁধা হচ্ছে এবং নিম্মাঞ্চল প্লাবিত হচ্ছে ।

পাহাড় কাঁটার সময় শওকত ও লিয়াকত গং এর বাকবিতান্ডা ।

এ সবের দেখার জন্য কেউ নাই । পরিবেশ অধিদপ্তর তা করতে গিয়ে চেলেন্জের স্বীকার হতে চায় না । সদর ইউ এন ও তা নিজের দাঁয় না নিয়ে পরিবেশ বলার কথা বলেন । ফলে পাহাডি এলাকাগুলোয় দুই অফিসের কর্মচারী এমন কি গাড়ির ড্রাইভারের পাঁচতলা ভবন চোখে পডার মতন। লকডাউনের সময় যখন আর দশজন গাডী চালক পেট চালাতে পারে না তখন ইউ এন ও সদরের ড্রাইভারের পাঁচ তলা ভবনে রাতদিন লকডাউন কে বৃদ্ধাঙ্গুলি দেখিয়ে শত শত শ্রমিক কাজ করছে । বিধিতে পরিকল্পনা , খাস জমিতে বহুতল ভবন নির্মাণের বিধান না থাকলে ও ইউ এন ও র ড্রাইভারের এমন কান্ড ইনকামের গতি বাডিয়েছে । তার পাশে সিনিয়র ড্রাইভারের আলিশান বাডী । জন মনে রেওয়াজ আছে সদর উপজেলার দক্ষিণের বিশাল অংশ হতে মাশওয়ারা পেয়ে রিতি মত কোটি কোটি টাকার মালিক সদর ইউ এন ও র দুই ড্রাইভার।

এলাকার সাধারণ মানুষের সাথে কথা বলে জানা যায় । ড্রাইভারদের মাধ্যমে পাহাড় কাঁটার জন্য একটি ব্যাবস্থা হয় । তাদের শর্ত মত টাকা দিলে পাহাড় কাঁটাতে কোন বাঁধা হয় না । তাছাডা আরো বেশ কিছু লোকজন এ সিন্ডিকেটের কাজ করে । কারো গাছ কাঁটলে গাডীতে দুই হাজার ।বাডীতে ছাঁদ দিলে প্রতি চাঁদে লাখ টাকা । ফাইলিংকরলে নির্দ্দিষ্ট হারে টাকা দিতে হয় । পাহাড় কাঁটলে টাকা দিতে হয় ঐ সিন্ডিকেটর হাতে । পাহাড় কাঁটতে টাকা না দিলে বিচারের নামে দুই পক্ষ কে ডেকে কৌশলে টাকা আদায় করা হয় ।
সব কিছু ঠিক থাকলে মাটি কেটে পাহাড় কে শ্রেণীর পরিবর্তন করা যায় । খুব সহসায় মাটি কাটা যায় । শুষ্ক মৌসুমে পাহাড় কাটাতে খরছ বেশী হয় । অতি বৃষ্টি পাহাড খেকুদের জন্য উপযুক্ত সময় । তাই অতি বৃষ্টি হলে পাহাডি জনপদে পডে মাটি কাঁটার ধুম। অতি বৃষ্টিতে সদর উপজেলার দক্ষিণ পাশে দক্ষিণ ডিককুলে চলছে পাহাড় কাটার ধুম ।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
Theme Created By ThemesDealer.Com