Logo
শিরেোনাম ::
সিলেট মহানগর ছাত্রলীগের উদ্যোগে শেখ হাসিনার জন্মদিন পালিত হাটহাজারী উপজেলা ছাত্রলীগের উদ্যোগে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা’র ৭৫ তম জন্মদিন পালিত সংগঠক সোহেল আহমেদ একাত্তর ক্রীড়া ও সমাজকল্যাণ সংস্থা’র সহ-সভাপতি নির্বাচিত বোয়ালখালীতে ব্যবসায়ী শিবু সেন পরলোকে মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর জন্মদিন পালন উপলক্ষে দক্ষিণ ভূর্ষি ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের প্রস্তুতি সভা মাসিক স্বাস্থ্য সচেতনতায় বটবৃক্ষের প্রথম ইভেন্ট সিলেট জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান জয়নাল আবদিনকে ইউপি সদস্য সুহেল আহমেদের শুভেচ্ছা শ্রীমঙ্গল উপজেলায় মানবতার সেবায় উজ্জ্বল দৃষ্টান্ত স্হাপন করেছে সাতগাঁও প্রবাসী ফোরাম জাতিসংঘের ‘এসডিজি অগ্রগতি পুরষ্কার’ অর্জন করায় প্রধানমন্ত্রীকে ডুয়েট উপাচার্যের অভিনন্দন ভোলাগঞ্জ- দয়ার বাজার রাস্তা সংস্কারে বরাদ্দ মন্ত্রী ইমরান আহমদ কে এড. মাহফুজুর রহমানের অভিনন্দন

কমলনগর ফের লকডাউনে গরীবের খোঁজ নেওয়ার কেউ নাই

মোঃ আব্দুর রহমান , কমলনগর উপজেলা প্রতিনিধি / ১৩৩ বার
আপডেট সময় : বৃহস্পতিবার, ১৮ জুন, ২০২০

কমলনগর উপজেলা প্রতিনিধিঃ কমলনগর উপজেলা প্রতিনিধিঃ- তুমুল বৃষ্টির মধ্যে কমলনগর উপজেলা হাজির হাটের একটি বাসায় এসেছেন ভিক্ষুক। গৃহকর্তী দরজা খুললেন। ওই ভিক্ষুকের চাওয়া একটু ভাত। বাসায় থাকা ভাত, তরকারি ওয়ান-টাইম বক্সে ভরে দেয়া হলো। গৃহকর্তী জিজ্ঞেস করলেন, ‘বাসা কোথায় আপনার’? ভিক্ষুকের উত্তর, ‘চর লরেন্স ‘। বয়স্ক ওই ভিক্ষুক জানালেন, ‘বাসায় কিছুই নেই রান্না করার মতো। তাই লকডাউনের মধ্যেও বের হতে হয়েছে সাহায্যের হাত পাততে। বয়স্ক ভাতা পান না তিনি, মেলেনি সরকারি সহায়তাও।

গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশের সরকার করোনা ভাইরাস প্রতিরোধ ও নির্মুলের ব্যবস্থা হিসেবে পুনরায় বিভিন্ন জায়গায় লকডাউন এর ঘোষণা দিয়েছে।

তারই ধারাবাহিকতায় কমলনগর দ্বিতীয় দফায় লক ডাউনের পদ্ধতি হিসেবে রেড জোন, গ্রীন জোন এ একেকটা অঞ্চলকে বিভক্ত করা হয়েছে।

গেল ১৫ জুন থেকে শুরু করে আগামী ৩০ জুন পর্যন্ত কমলনগর উপজেলায় সকল বহিরাগত কার্যক্রম বন্ধ থাকবে, হাসপাতাল ও ফার্মেসী ব্যতিত।

যেহেতু প্রশাসন লকডাউন জারি করেছে, সকল কাজ বন্ধ,মানুষের উপার্জন করার উপায় নেই।

কিন্তু প্রশ্ন জাগে দিনমজুর,রিক্সাচালক, ভ্যানচালক, হোটেল বয়, নিম্নবিত্ত পরিবার, নিম্ন মধ্যবিত্ত পরিবার সহ যারা টাকা মজুদ রাখার অযোগ্য,সেসকল মানুষের জন্য প্রশাসনের সাহায্য নীতি এই মুহুর্তে ঠিক কি রকম.?

বর্ণিত ঘটনা একটি দুটি স্থানের নয়। প্রায় উপজেলার প্রত্যেক টি ইউনিয়নের একই অবস্থা।কারন এই অঞ্চলের ৯০ শতাংশ মানুষের জীবনযাত্রার মান নিম্ন ও মধ্যবিত্ত। মানুষ একদিকে খাদ্য সহায়তা পাচ্ছেন না, মিলছে না ত্রাণ, একই সঙ্গে বয়স্ক ভাতাও অনেকগুলো জায়গায় মেলেনি অসহায়দের। এর বিপরীতি “টোটাল লকফাউন” হয়ে আসছে “কাটা গায়ে নুনের ছিটা” মত।
পূর্বের দেওয়া সরকারি ত্রাণের চাল-তেলসহ নানা পণ্য চুরি থেকে শুরু করে, রাজনৈতিক নেতার প্রভাবে অস্বচ্ছলের বদলে তুলনামূলক স্বচ্ছলরাও ত্রাণ প্রাপ্তির তালিকায় চলে গেছেন। ত্রাণ যারা দিচ্ছেন তারা যেমন লোভ সামলাতে পারেন নাই, তেমনি ত্রাণ পেতেও লবিং করাও ছিল খুব জরুরি।

খাদ্য যেকোন প্রাণের মৌলিক চাহিদা। যথাযথ পুষ্টি,শর্করা,আমিষ সহ শারীরিক প্রয়োজনীয় উপাদান সমূহ প্রাণের বিশেষত মানুষের জন্য খুবই গুরুত্বপূর্ণ।
এই Covid-19 সময়কালে যথাযথ পুষ্টি একজন মানুষকে হার্ড ইম্যুউনিটি বা রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা অর্জনে সাহায্য করবে।শুধুমাত্র নিরাপদে বসবাস করলেই আমরা মুক্ত থাকব তা একেবারে সঠিক নয় বরং আমাদের খাদ্যের নিশ্চয়তা আরও জরুরি।

সেক্ষেত্রে কমলনগর প্রশাসনের কাছে আবেদন থাকবে লক ডাউনের এই সময়গুলোতে তারা যেন সরকারী সাহায্য গুলো আমলাতান্ত্রিক জটিলতা মুক্ত করে, বিশেষ গুরুত্ব দিয়ে সেবা ও খাদ্য সহজলভ্য করে এবং সম্ভব হলে বিনামূল্যে বিতরণ করে।

এক্ষেত্রে পূর্বেকার মত হট লাইন নাম্বার এর মাধ্যমে দুর্দশাগ্রস্ত ব্যক্তি যেন সরাসরি প্রশাসনের মাধ্যমে সাহায্য পায় সেরকম ব্যবস্থা করার আবেদন কমলনগরের খেটে-খাওয়া মানুষের ।

উপজেলা প্রশাসনের কার্যকরী নীতি ঘোষণা ও বাস্তবায়ন এখন সময়ের দাবী।এই কঠিন সময়ে যতই দীর্ঘ মেয়াদি হবে ততই ক্ষুধার জ্বালা বর্জ্রকন্ঠে বলে উঠবে…

“ভাত দে হারামজাদা
নইলে মানচিত্র খাবো”


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
Theme Created By ThemesDealer.Com