Logo
শিরেোনাম ::
সিমোশএমসিতে ইন্টার্ন ডক্টরস রিসেপশন সম্পন্ন বশেমুরবিপ্রবি শিক্ষক সমিতির নির্বাচন-২০২২ তানোরে চোলাই মদ ও পলাতক আসামি গ্রেফতার হাজীগঞ্জ শাহরাস্তিতে ইঞ্জিঃ মোহাম্মদ হোসাইনের শীতবস্ত্র বিতরন বটবৃক্ষের উদ্যোগে শীতবস্ত্র বিতরন ডুয়েটে অনুষ্ঠিত হলো “শহীদ মোস্তফা এক্সিলেন্স অ্যাওয়ার্ড-২০২১” শীতার্তদের মাঝে কম্বল বিতরন করলেন ইঞ্জিঃ মোহাম্মদ হোসাইন পটিয়া উপজেলায় বিভিন্ন এতিমখানার ছাত্রদের মাঝে কেন্দ্রীয় যুবলীগ নেতা বদিউল আলমের শীতবস্ত্র বিতরণ শাহজাদপুর প্রিমিয়ার লীগ সিজন-২ শুরু ফিরিঙ্গী বাজার ওয়ার্ড ছাত্রলীগের উদ্যোগে ছাত্রলীগের ৭৪ তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উদযাপন করা হয়েছে

স্বামীর হাতে স্ত্রী খুন হত্যা রহস্য ৭২ ঘণ্টায় উদঘাটন করল ঈশ্বরদী থানা পুলিশ

বাঁধন মন্ডল / ১৩৮ বার
আপডেট সময় : বুধবার, ১৭ জুন, ২০২০

ঈশ্বরদী প্রতিনিধিঃ শনিবার ১৩ জুন মধ্যরাতে ঈশ্বরদী উপজেলার মুলাডুলি ইউনিয়নের চাঁদপুর গ্রামের রেলওয়ে স্টেশন সংলগ্ন মৃত শহিদুল ইসলাম বাবলুর ছেলে মোঃ জানিক হোসেন বাবু এর স্ত্রীর অস্বাভাবিক মৃত্যু হয়। মিতু কুমিল্লা জেলার দাউদকান্দি থানার মোল্লাকান্দি গ্রামে মৃত মিজানুর রহমানের মেয়ে। নিহত মিতু ঈশ্বরদী ইপিজেড এর একটি পোশাক কারখানায় চাকরি করতো।

পরবর্তীতে রবিবার (১৪ জুন) ঈশ্বরদী থানার উপ-পরিদর্শক জামিলুর নিহতের লাশ উদ্ধার করে থানায় নিয়ে আসে এবং পাবনা জেনারেল হাসপাতালের মর্গে ময়নাতদন্তের জন্য পাঠায় খুনের সন্দেহভাজন হিসাবে নিহতের স্বামী মোঃ জানিক হোসেন বাবু শাশুড়ি হেনা বেগম এবং ভাসুরের স্ত্রী সুমা বেগম কে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য আটক করে থানায় নিয়ে আসা হয় পুলিশের ব্যাপক জিজ্ঞাসাবাদে নিহতের স্বামী স্বীকার করে সে একাই তার স্ত্রীকে শ্বাসরোধ করে হত্যা করেছে এলাকাবাসীর সাথে কথা বলে জানা যায় নিহতের স্বামী মোঃ জানিক হোসেন একজন নেশাগ্রস্ত ব্যক্তি সে নেশার টাকার জন্য প্রায় প্রতিদিন তার স্ত্রীকে নির্যাতন করতো করোনা ভাইরাস পরিস্থিতিতে পোশাক কারখানা বন্ধ থাকায় নিহত মিতুর রোজগারের পথ প্রায় বন্ধ ছিল ঘটনার রাতে নেশার টাকা নিয়ে তার স্ত্রীর সাথে কথা কাটাকাটির এক পর্যায়ে সে তার স্ত্রীকে শ্বাসরোধ করে হত্যা করে এবং পরিবারের সদস্যদের জানাই হার্ট অ্যাটাকের কারণে তার স্ত্রী মারা গেছেন থানা পুলিশ সূত্রে জানা যায় নিহতের স্বজনরা এক জনকে আসামি করে থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করেছে নিহতের স্বামী মোঃ জানিক হোসেন বাবু মিতু হত্যাকাণ্ডের কথা পুলিশের কাছে স্বীকার করেছে তাই আসামিকে আদালতের মাধ্যমে পাবনা জেলা কারাগারে পাঠানো হয়েছে। যেহেতু আসামি স্বীকার করেছে সে একাই এই হত্যাকান্ডের সাথে জড়িত তাই বাকি দুজনকে জিজ্ঞাসাবাদ শেষে ছেড়ে দেওয়া হয়েছে।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
Theme Created By ThemesDealer.Com
P