Logo
শিরেোনাম ::
বাবা দিবসে বীর মুক্তিযোদ্ধা বাবার কাছে কন্যার খোলা চিঠি শাহজাদপুরে কোটি টাকায় ২ কিলো রাস্তায় মাটি ভরাট -১৫ হাজার মানুষের চলাচলে চরম দূর্ভোগ করোনা রোগীদের অক্সিজেন সিলিন্ডার দিলেন রাজশাহী মহানগর ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক ডাঃসবুজ মানবাধিকার ফাউন্ডেশন ট্রাস্ট অব বাংলাদেশ সিলেট বিভাগীয় কমিটি গঠ কুমিল্লা চৌদ্দগ্রামে ভেজাল বিটুমিন তৈরি কারখানায় অভিযান মালিক সহ ২জনকে কারাদন্ড এ্যাডভোকেট এ এম মোয়াজ্জেম হোসেন’র মৃত্যু বার্ষিকীতে বঙ্গবন্ধু আইন ছাত্র পরিষদের শ্রদ্ধা নিবেদন পটিয়া জিরি ইউনিয়নে অগ্নিকান্ডে ক্ষতিগ্রস্ত অসহায় পরিবারের পাশে কেন্দ্রীয় নেতা বদিউল আলম প্লাস্টিক বর্জ্য সামুদ্রিক ও জলজ জীবনের সবচেয়ে বড় হুমকি কুমিল্লা চৌদ্দগ্রাম উপজেলার কাশিনগর বাজারে নিরাপত্তার স্বার্থে সিসি ক্যামেরা উদ্বোধন কবিতাঃ “একটি স্বচ্ছ হৃদয়”

ময়মসিংহে করোনা সংক্রমনের হার এর উর্ধ্বগতি

মোশারফ মাহিন, ময়মনসিংহ জেলা সদর প্রতিনিধি / ৯১ বার
আপডেট সময় : মঙ্গলবার, ১৬ জুন, ২০২০

ময়মনসিংহ জেলা সদর প্রতিনিধিঃ
ময়মনসিংহে যেন এবার লাগামছাড়া করোনার সংক্রমণ। ইতোমধ্যে জেলায় এক হাজার ছাড়িয়ে গেছে শনাক্তের সংখ্যা। প্রথম ৫০০ রোগী শনাক্ত হতে ৫৪ দিন সময় লাগলেও পরের ৫০০ শনাক্ত হয়েছে মাত্র ১৫ দিনেই।

ময়মনসিংহে নতুন করে ১১৮ জনের দেহে করোনাভাইরাসের উপস্থিতি পাওয়া গেছে। এটি একদিনে সর্বোচ্চ শনাক্তের রেকর্ড। এনিয়ে জেলায় মোট শনাক্তের সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ১ হাজার ৫৯ জনে।

মঙ্গলবার (১৬ জুন) সকালে জেলা সিভিল সার্জন ডা. এ.বি.এম মসিউল আলম Engineers News24 -কে এ বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

তিনি জানান, সোমবার ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ (মমেক) হাসপাতালের পিসিআর ল্যাবে নমুনা পরীক্ষায় আক্রান্তদের মধ্যে ময়মনসিংহ সিটি করপোরেশন ও সদরে ৫২ জন, ঈশ্বরগঞ্জে ১৭, মুক্তাগাছা ১৪, হালুয়াঘাট ও ভালুকার ৯ জন করে, নান্দাইল ৮, গৌরীপুর ৪ জন, ফুলবাড়িয়া ৩ এবং গফরগাঁও উপজেলার ২ জন রয়েছেন।

শনাক্তের তথ্য বিশ্লেষণ করে দেখা গেছে, জেলায় প্রথম কোভিড-১৯ শনাক্ত হয়েছিল গত ৮ এপ্রিল। এরপর সংখ্যাটি ১০০ স্পর্শ করতে সময় লেগেছিল ১৯ দিন। ২০০ পার হয় আরও ১২ দিন পর। প্রথম ২০০ ছাড়াতে ৩১ দিন অতিবাহিত হলেও পরের ২০০ ছাড়াতে সময় নেয় মাত্র ১৮ দিন। তারপরে মাত্র পাঁচদিনেই সংখ্যাটি ৫০০ ছাড়ায়। এরপর ১ জুন থেকে ১৫ জুন পর্যন্ত মাত্র ১৫ দিনেই সংখ্যাটি এক হাজার ছাড়িয়ে যায়।

সিভিল সার্জন কার্যালয় জানায়, জেলায় সবচেয়ে বেশি আক্রান্ত হয়েছে সদরসহ সিটি করপোরেশনে। এখানে শনাক্তের সংখ্যা ৫১৭ জন। এরপরই আছে ভালুকা উপজেলা, সেখানে শনাক্ত হয়েছে ১৮৩ জন। এছাড়াও ঈশ্বরগঞ্জে ৬৩ জন, ফুলপুর ৪৫, ত্রিশাল ৪২, গফরগাঁও ৪১, ধোবাউড়ায় ৩৭, মুক্তাগাছা ৩৫, ফুলবাড়িয়ায় ২৬ জনসহ জেলার ১৩ উপজেলাতেই করোনাভাইরাসের সংক্রমণ ছড়িয়েছে।

জেলায় আক্রান্ত লোকজনের মধ্যে ৬৯৪ জন আইসোলেশনে রয়েছেন। তাদের মধ্যে ৬৬২ জন হোম আইসোলেশনে এবং ৩২ জন প্রাতিষ্ঠানিক আইসোলেশনে ভর্তি রয়েছেন। এছাড়া ১০ জনকে ঢাকায় স্থানান্তর করা হয়েছে।

সংক্রমিতদের মধ্যে গত ২৪ ঘণ্টায় ১৭ জনসহ মোট ৩৪৪ জন সুস্থ হয়েছেন। জেলায় এখন পর্যন্ত করোনায় আক্রান্ত ১১ জনের মৃত্যু হয়েছে।

ইতোমধ্যে ময়মনসিংহ সিটি করপোরেশনের তিনটি এলাকা এবং ভালুকা উপজেলার একটি ইউনিয়নকে রেড জোন হিসেবে চিহ্নিত করেছে জেলা প্রশাসন।

এলাকাগুলো হল- ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালসহ নগরের চরপাড়া, আকুয়া ও কাঁচিঝুলি এলাকা এবং ভালুকা উপজেলার হবিরবাড়ী ইউনিয়ন।

জেলা প্রশাসক মিজানুর রহমান জানিয়েছেন, এসব এলাকায় কঠোর নিয়ন্ত্রণ আরোপ, লাল পতাকা উত্তোলন, মানুষের চলাচল ও দোকানপাট সীমিত পরিসরে খোলা রাখার জন্য কড়াকড়ি আরোপের সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। এছাড়াও স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলার বিষয়ে নিয়মিত মাইকিংয়ের কার্যক্রম বিস্তৃত করবে জেলা প্রশাসন। এক্ষেত্রে ধর্মীয় প্রতিষ্ঠানকে সম্পৃক্ত করা হবে।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
Theme Created By ThemesDealer.Com