Logo
শিরেোনাম ::
ভেটেরিনারিয়ানদের নিয়ে কটুক্তি করার প্রতিবাদে পবিপ্রবিতে মানববন্ধন অনুষ্ঠিত প্রবাসী ছোট ভাই কে না পেয়ে বড় ভাই কে মারধর ও হত্যার হুমকি তানোরে লক্ষিত সুফলভোগী মানুষের মাঝে ৫৮ টি বকনা গরু বিতরণ কোছাক কতৃক সাহিত্য প্রকাশনা “স্বপ্ন” ম্যাগাজিনের মোড়ক উন্মোচন উদ্বোধন করেন এড. মাহফুজুর রহমান ডুয়েট সিএসই বিভাগের নবীন শিক্ষার্থীদের ওরিয়েন্টেশন প্রোগ্রাম অনুষ্ঠিত রামগঞ্জ উপজেলার ৪ নং ইছাপুর ইউনিয়ন ছাত্রলীগ সভাপতির মৃত্যু প্রবাসীর স্ত্রীকে ইলেকট্রনিক্স ব্যবসায়ীর প্রাননাশের হুমকি কাটাখালী পৌর মেয়র আব্বাসের বঙ্গবন্ধু কে নিয়ে কটুক্তির বিরুদ্ধে বিক্ষোভ মিছিল ও প্রতিবাদ সমাবেশ বঙ্গবন্ধুকে কটুক্তির তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়ে আব্বাস আলীকে গ্রেপ্তারের দাবি রাসিক কাউন্সিলরবৃন্দের ডুয়েটে শহীদ মোস্তফা এক্সিলেন্স অ্যাওয়ার্ড অনুষ্ঠানের উদ্বোধন

মুসলিম উত্তরাধিকার/ মৃত ব্যাক্তির সম্পত্তি বন্টন প্রক্রিয়া(Muslim law of inheritance)

প্রকৌশলী শাহনেওয়াজ খান মিলন , নির্বাহি সম্পাদক / ৫০৭ বার
আপডেট সময় : বুধবার, ২৭ মে, ২০২০

*বিশ্বনবী হযরত মুহম্মদ (সাঃ) আজ থেকে ১৪শত বছর আগেই বলে গিয়েছেন,
“উত্তরাধিকার আইন নিজে জানো ও অপরকে শেখাও, সকল জ্ঞানের অর্ধেক হল এই জ্ঞান”।

*কোন ব্যাক্তির মৃত্যুর পর তিনটি পর্যায়ে তার সম্পত্তির বিভাজন করতে হয়।

*প্রথম পর্যায়ঃ কোন মুসলমান মারা গেলে তার সম্পত্তি বণ্টনের আগে কিছু আনুষ্ঠানিকতা পালন করতে হয়।
১. মৃত ব্যক্তির পর্যাপ্ত সম্পত্তি থাকলে সেখান থেকে তার দাফন কাফনের(Funeral) যাবতীয় খরচ মেটাতে হবে।
২. তিনি যদি জীবিত থাকা অবস্থায় কোন ধার-দেনা(Wages&Due) করে থাকেন তবে তাও রেখে যাওয়া সম্পত্তি থেকে পরিশোধ করে দিতে হবে।
৩. তাঁর স্ত্রী বা স্ত্রীদের দেনমোহর(Dower) পরিশোধিত না হয়ে থাকলে বা আংশিক অপরিশোধিত থাকলে তা পরিশোধ করে দিতে হবে। মোট কথা স্ত্রীর সম্পূর্ণ দেনমোহর স্বামী মৃত অথবা জীবিত যাই থাকুক না কেন তা স্বামীর সম্পত্তি থেকে আইন অনুযায়ী সম্পূর্ণ পরিশোধ করে দিতে হবে।
৪. মৃত ব্যক্তি কোন দান কিংবা উইল(Will) করে গেলে তা প্রাপককে দিয়ে দিতে হবে।

*দ্বিতীয় পর্যায়ঃ এ পর্যায়ে তিন ধরনের উত্তরাধিকারীগন মৃত ব্যাক্তির সম্পত্তি ভোগ দখলের দাবি রাখে, যথাঃ
১. **কোরানিক উত্তরাধিকার(Quranic heirs)
২. আবশিষ্ট ভোগী(Residuaries)
৩. দূরবর্তী সগোত্র(Distant kindreds)

**কোরানিক উত্তরাধিকারঃ মোট ১২ জন উত্তরাধিকারী এ ক্ষেত্রে মৃত ব্যাক্তির সম্পত্তির মালিক হয়ে থাকে। যাদের অংশ সুস্পষ্ট ভাবে বর্ণিত। তারা হলেন;

i. মাঃ মা তাঁর মৃত সন্তানের সম্পত্তি পেয়ে ৩ ভাবে পেয়ে থাকে। – মৃত ব্যক্তির কোন সন্তান বা পুত্রের সন্তানাদি যত নিম্নেরই হোক থাকলে অথবা যদি মৃত ব্যক্তির আপন, পূর্ণ বৈমাত্রেয় বা বৈপিত্রেয় ভাইবোন থাকলে তবে মাতা ছয় ভাগের এক ভাগ (১/৬) পাবেন।

মৃত ব্যক্তির কোন সন্তান বা পুত্রের সন্তানাদি যত নিম্নের হোক না থাকলে এবং মৃত ব্যক্তির যদি একজনের বেশি ভাই বা বোন না থাকে তবে মাতা তিন ভাগের এক ভাগ (১/৩) পাবেন। কোন সন্তান বা পুত্রের সন্তানাদি যত নিম্নের হোক না থাকলে অথবা কমপক্ষে দুইজন ভাইবোন না থাকলে এবং যদি মৃত ব্যক্তির স্বামী বা স্ত্রীর অংশ বাদ দেয়ার পর যা অবশিষ্ট থাকবে, তার তিন ভাগের এক ভাগ (১/৩) মাতা পাবেন। মৃত ব্যক্তির এক ভাই থাকলেও মাতা ১/৩ অংশ পাবেন।

ii. মেয়েঃ উত্তরাধিকারের ক্ষেত্রে কন্যারা তিনভাবে মাতাপিতার সম্পত্তি পেতে পারে। একমাত্র কন্যা হলে তিনি রেখে যাওয়া সম্পত্তির দুই ভাগের এক ভাগ বা (১/২) অংশ পাবে। একাধিক মেয়ে হলে সবাই মিলে সমানভাগে তিন ভাগের দুই ভাগ বা (২/৩) অংশ পাবে। যদি পুত্র থাকে তবে পুত্র ও কন্যার সম্পত্তির অনুপাত হবে ২:১ অর্থাৎ এক মেয়ে এক ছেলের অর্ধেক অংশ পাবে। যাহোক কন্যা কখনো মাতাপিতার সম্পত্তি হতে বঞ্চিত হয় না।

##পুত্রঃ মৃত ব্যক্তির ছেলে বা ছেলেরা সকল ক্ষেত্রেই সম্পত্তি পায়। যেক্ষেত্রে মৃত ব্যক্তির ছেলে ও মেয়ে রয়েছে সেই ক্ষেত্রে ছেলে বা ছেলেরা, মেয়ে বা মেয়েদের চেয়ে দ্বিগুন সম্পত্তি পাবে। মৃত ব্যক্তির সম্পত্তিতে মাতাপিতা ও স্বামী-স্ত্রী নির্দিষ্ট সম্পত্তি পাওয়ার পর অবশিষ্ট সম্পত্তি ছেলে মেয়ের মধ্যে বন্টন করা হবে। তবে মেয়ে না থাকলে অংশীদারদের অংশ দেয়ার পর অবশিষ্টাংশভোগী হিসেবে বাকী সম্পূর্ণ সম্পত্তি ছেলে বা ছেলেরাই পাবে।

পিতা মারা গেলে তিনি জীবিত থাকা অবস্থায় যে সম্পত্তি পেতেন তা তাঁর মৃত্যুর পরও তাঁর উত্তরাধিকারীরা পাবে।

iii. স্ত্রীঃ স্ত্রীও ২ ভাবে তাঁর মৃত স্বামীর সম্পত্তি পেয়ে থাকে। বিধবা স্ত্রী কোন ভাবে তাঁর স্বামীর সম্পত্তি থেকে বঞ্চিত হবে না। মৃত স্বামীর কোন সন্তান বা তাঁদের পুত্রের সন্তান থাকলে স্ত্রী, স্বামীর সম্পত্তির ১/৮ অংশ পাবে। যদি মৃত স্বামীর কোন সন্তান বা পুত্রের সন্তান কেউই না থাকলে তবে স্ত্রী, স্বামীর সম্পত্তির ১/৪ অংশ পাবে। স্ত্রী একাধিক হলেও সবাই মিলে ১/৪ অংশ সমান ভাগেই পাবে।

iv. বাবাঃ বাবা তাঁর মৃত সন্তানের সম্পত্তির উত্তরাধিকারী ৩ ভাবে হয়ে থাকে। যদি মৃত সন্তানের পুত্র, পুত্রের পুত্র বা পুত্রের পুত্রের পুত্র এভাবে যতই নিচের হোক না কেন যদি থাকে, তবে মৃত সন্তানের পিতা পাবেন সন্তানের সম্পত্তির ১/৬ অংশ।

যদি মৃত সন্তানের শুধু মাত্র কন্যা সন্তান বা তাঁর পুত্রের কন্যা সন্তান থাকলে তবে পিতা সন্তানের সম্পত্তির ১/৬ অংশ পাবেন।

এই ক্ষেত্রে কন্যাদের ও অন্যান্যদের দেয়ার পর অবশিষ্ট যে সম্পত্তি থাকবে তাও পিতা পাবেন। আর যদি মৃত সন্তানের কোন পুত্র-কন্যা বা পুত্রের সন্তান কিছুই না থাকে তাবে বাকী অংশীদারদের তাঁদের অংশ অনুযায়ী দেয়ার পর অবশিষ্ট যা থাকবে তার সবটুকুই বাবা পাবেন।

তবে মৃত ব্যক্তির কোন সন্তান ও বাবা কেউ না থাকলে তাঁর সম্পত্তি তাঁর জীবিত ভাই বা ভাইরা পাবে। আবার ভাই না থাকলে তাঁর ভাইয়ের সন্তানরা পাবে।

v. স্বমীঃ স্বামী ২ ভাবে মৃত স্ত্রীর সম্পত্তির ভাগ পেয়ে থাকে। স্বামী কখনো তাঁর মৃত স্ত্রীর সম্পত্তি থেকে বঞ্চিত হবে না। মৃত স্ত্রীর কোন সন্তান বা পুত্রের সন্তান থাকলে স্বামী স্ত্রীর সম্পত্তির ১/৪ অংশ পাবে। মৃত স্ত্রীর কোন সন্তান বা পুত্রের সন্তান কেউই না থাকলে স্বামী স্ত্রীর সম্পত্তির ১/২ অংশ পাবে।

এছাড়াও নিন্মোক্ত ব্যাক্তি গণ সম্পত্তির উত্তরাধিকার ভোগ করে থাকে। যেহেতু উপরোক্ত ব্যাক্তি গণের মধ্যেই সম্পত্তি বেশির ভাগ ক্ষেত্রে বণ্টিত হয়ে যায় সেহেতু নিন্মোক্ত উত্তরাধিকারীদের শুধু নাম উল্লেখ করা হল।

vi.আপন বোন(মা ও বাবা একই; full sister)

vii.একই মায়ের পেটের বোন(মা একই কিন্তু বাবা ভিন্ন; uterine sister)

viii. বৈমাত্রিয় বোন( বাবা এক মা ভিন্ন;consanguine sister)

ix.দাদী(true grandmother)

x. ছেলের মেয়ে(sons daughter)

xi. একই মায়ের পেটের ভাই (Uterine brother)

xii. দাদা(true grandfather)

উপরে বর্ণনাকৃত ১২ জনই কোরআনিক উত্তরাধিকার বলে গণ্য। সম্পত্তি সাধারণত এদের মধ্যেই বন্টিত হয়ে যায়।

*তৃতীয় পর্যায়ঃ এ পর্যায়ে কোন উত্তরাধিকার না থাকায় রাষ্ট্র সম্পত্তির মালিক রুপে গণ্য হয়।

লেখকঃ নাঈম শাহরিয়ার।
আইন বিভাগ, বাউবি।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
Theme Created By ThemesDealer.Com
P