Logo
শিরেোনাম ::
বশেমুরবিপ্রবি শিক্ষক সমিতির নির্বাচন-২০২২ তানোরে চোলাই মদ ও পলাতক আসামি গ্রেফতার হাজীগঞ্জ শাহরাস্তিতে ইঞ্জিঃ মোহাম্মদ হোসাইনের শীতবস্ত্র বিতরন বটবৃক্ষের উদ্যোগে শীতবস্ত্র বিতরন ডুয়েটে অনুষ্ঠিত হলো “শহীদ মোস্তফা এক্সিলেন্স অ্যাওয়ার্ড-২০২১” শীতার্তদের মাঝে কম্বল বিতরন করলেন ইঞ্জিঃ মোহাম্মদ হোসাইন পটিয়া উপজেলায় বিভিন্ন এতিমখানার ছাত্রদের মাঝে কেন্দ্রীয় যুবলীগ নেতা বদিউল আলমের শীতবস্ত্র বিতরণ শাহজাদপুর প্রিমিয়ার লীগ সিজন-২ শুরু ফিরিঙ্গী বাজার ওয়ার্ড ছাত্রলীগের উদ্যোগে ছাত্রলীগের ৭৪ তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উদযাপন করা হয়েছে সদর দক্ষিণ এর বিজয়পুরে বিনামূল্যে “বোন ডেনসিটি মেজারমেন্ট ক্যাম্পেইন”

বেকারত্ব ও কর্মসংস্থান – লেখকঃ ইয়াসিন আরাফাত

রিপোর্টারের নাম / ৩৭০ বার
আপডেট সময় : মঙ্গলবার, ১৯ মে, ২০২০

বেকারত্ব ও কর্মসংস্থান

লেখকঃ ইয়াসিন আরাফাত

বিজিআইএফটি ইউনিভার্সিটি অফ সায়েন্স টেকনোলজি (গাজীপুর)

কর্মসংস্থানের সুযোগ সৃষ্টি না হওয়ায় বাংলাদেশে শিক্ষিত তরুণদের বেকারত্বের হার দিন দিন বাড়ছে। বর্তমানে বেকার সমস্যা মনে হয় বাংলাদেশে জাতীয় সমস্যা হয়ে দাঁড়িয়েছে। যতই দিন যাচ্ছে বাংলাদেশ বেকারত্বের সংখ্যা বেড়েই চলছে। সরকার চাকরির পেছনে না ছুটে যুব সমাজকে তাদের মেধা ব্যবহারের মাধ্যমে কর্মসংস্থান সৃষ্টির আহ্বান জানিয়েছেন।
শুধু চাকরির মুখাপেক্ষী হয়ে বসে থাকলে চলবেনা। তরুণদের মাঝে যে সুপ্ত শক্তি রয়েছে একটা কিছু তৈরি করার, তার চিন্তা ও মননকে বিকশিত করার, সেই কর্মদক্ষতাকে কাজে লাগাতে হবে। নিজের কাজ করবে আরও ১০ জনকে কাজের সুযোগ করে দেবে।
বাংলাদেশ থেকে বেকারত্ব দূর করা স্বল্প সময়ে সম্ভব নয়। কারণ আমাদের কর্মসংস্থান বাড়াতে হবে টিক কিন্তু শিক্ষিত বেকার যুবক তারা যদি চাকরির পেছনে না ছুটে নিজে উদ্যোগী হয়ে কর্মসংস্থান করার চেষ্টা করে তবেই বেকারত্ব হ্রাস পাবে। কিন্তু তাদের সহযোগিতায় সরকারকে সহজ শর্তে ঋণ দিতে হবে। বিভিন্ন যুব উন্নয়ন সংস্থা যে প্রশিক্ষণ দিচ্ছে সরকারকে সেটা আরও জোরদার ও সারাদেশে ছড়িয়ে দিতে হবে। তাহলে অনেকের কর্মসংস্থান সৃষ্টি হবে। ফলে আমাদের দেশে বেকারত্বের কারণে তরুণরা যে হতাশায় আছে তা থেকে কাটিয়ে উঠতে পারবে। সরকারকে অবশ্যই যুব সমাজকে কীভাবে কাজে লাগানো যাবে, সেটা ভাবতে হবে গুরুত্ব সহকারে। উন্নয়ন পরিকল্পনায় তরুণদের সম্পৃক্ত করার বিষয়টি অগ্রাধিকার দিতে হবে, যাতে যুব সমাজের কাউকে অলস বসে থাকতে না হয়। নতুন উদ্যোক্তা সৃষ্টিতেও গুরুত্ব সহকারে দৃষ্টি দেওয়া প্রয়োজন। সবচেয়ে বেশি গুরুত্ব দিতে হবে জনসংখ্যা বৃদ্ধি রোধ এবং অর্থনৈতিক কাঠামোগত পরিবর্তনে। প্রয়োজন কর্মমুখী শিক্ষা বিস্তার, কুটির শিল্পের প্রসারসহ আত্মকর্মসংস্থানমূলক বিভিন্ন প্রকল্প বাস্তবায়ন।

ক্ষুদ্র ও কুটিরশিল্প এবং বিদেশি বিনিয়োগের লক্ষ্যে গ্যাস ও বিদ্যুৎ সরবরাহ নিশ্চিত করতে হবে। ক্ষুদ্র শিল্প এবং বিভিন্ন প্রচলিত-অপ্রচলিত খাতে মহিলা ক্ষুদ্র উদ্যোক্তাদের প্রশিক্ষণ ও ঋণ সহায়তা প্রদান করতে হবে। সর্বোপরি এসব লক্ষ্য বাস্তবায়নে সরকারি বেসরকারি সংস্থাসহ রাজনৈতিক দলগুলোকেও এগিয়ে আসতে হবে।
বাংলাদেশে বেকার সমস্যা একক কোনো সমস্যা নয়, বরং বহুবিধ সমস্যার জনক। এ সমস্যা ব্যক্তি ও পারিবারিক জীবন থেকে শুরু করে জাতীয় জীবনেও নেতিবাচক প্রভাব ফেলছে। এ সমস্যা সমাধানে সরকারি সদিচ্ছা যেমন জরুরি, তেমনি সৎ ও যোগ্য নেতৃত্বেরও প্রয়োজন। বিপুল কর্মসংস্থান সৃষ্টি এবং শিক্ষিত ও পরিশ্রমী জনগোষ্ঠীকে বিভিন্ন ধরনের কাজে উৎসাহী করে তুলতে পারলেই বেকারত্বের বিশাল বোঝা কিছুটা হলেও লাঘব হবে। কর্মসংস্থানের সুযোগ সৃষ্টি হলে সরকারের উন্নয়ন অগ্রযাত্রায় নতুন জোয়ার আসবে বলে আমি মনে করি। সেজন্য প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নিতে হবে সবার।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
Theme Created By ThemesDealer.Com
P